প্রবাসীদের পক্ষে কথা বলেন সাংবাদিক সাইফুল রাজিব, এটাই তার অপরাধ - amarkhobor24.com

শিরোনাম

Home Top Ad


Wednesday, May 13, 2020

প্রবাসীদের পক্ষে কথা বলেন সাংবাদিক সাইফুল রাজিব, এটাই তার অপরাধ

আব্দুল্লাহ আল-মামুন, সৌদি আরব প্রতিনিধিঃ  ফেনী জেলার ছাগলনাইয়া থানার মহামায়ার ইউনিয়নের সন্তান সাইফুল রাজীব। ২০০৮ সাল থেকে আছেন সৌদি আরবের জেদ্দায় কর্ম জীবনের পাশাপাশি সৌদি আরবে ২২ লক্ষ প্রবাসীর স্বার্থে কাজ করেন। বিগত দেড় বছর আগে যুক্ত হয়েছেন সাংবাদিকতায়, বেসরকারি টেলিভিশন বাংলা টিভি'র জেদ্দা প্রতিনিধি হয়ে নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন প্রবাসীদের জন্য, মাত্র দেড় বছরেই সৌদি আরবে কনস্যুলেট, বাংলাদেশী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, সামাজিক, সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দসহ প্রবাসী বাংলাদেশীদের মন জয় করেন সাইফুল রাজীব।
যার প্রমান মিলে তার ব্যক্তিগত ফেসবুক ও ফ্যান পেইজে, ২ একাউন্টে সাইফুল রাজীব কে ফলো করছেন প্রায় দেড় লক্ষ প্রবাসী। প্রবাসীদের নিয়ে সাইফুল রাজীবের করা বেশ কিছু প্রতিবেদন ইতিমধ্যে ভাইরাল হয়েছে, বর্তমান করোনা মহামারীতে প্রতিদিন ফেসবুক লাইভে এসে প্রবাসীদের বিভিন্ন তথ্য ও সচেতন করে যাচ্ছেন, তার এই লাইভ অনুষ্ঠানে প্রতিদিন কোন না কোন অতিথি ও যুক্ত থাকেন, ইতিমধ্যে দূতাবাস ও কনস্যুলেট কর্মকর্তাসহ বাংলাদেশের প্রথম সারির বেশ কয়জন সিনিয়র সাংবাদিক ও তার অনুষ্ঠানে যুক্ত হয়েছিলেন।

হঠাৎ গত পরশু জেদ্দায় সাংবাদিকদের সংগঠন "রিপোর্টার্স এসোসিয়েশন" সাইফুল রাজীব কে ৪টি অভিযোগ এনে এক বছরের জন্য কমিটি থেকে অব্যাহতি দিয়েছে, তবে সেই অভিযোগের কোন সুনির্দিষ্ট প্রমান ও সংযুক্তি দেয়া হয়নি। তাৎক্ষণিক সাইফুল রাজীব ৪টি অভিযোগ মিথ্যা বানোয়াট ও উদ্দেশ্য প্রণোদিত বলে ৪টি অভিযোগের প্রমান চেয়ে পাল্টা নোটিশ দেন।

উল্লেখ সাইফুল রাজীব উক্ত এসোসিয়েশনে সহ প্রচার সম্পাদক এর দায়িত্বে ছিলেন। তাকে অব্যাহতি দেয়ার নোটিশটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে প্রবাসীরা ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে এবং তারা সাইফুল রাজীব এর পাশে রয়েছেন বলে তার উপর আনীত অভিযোগ প্রত্যাহারের দাবি জানিয়ে ফেসবুকে বিভিন্ন পোস্টার মাধ্যমে প্রতিবাদ অব্যাহত রেখেছেন।

অন্যদিকে জেদ্দায় আওয়ামী ফোরাম (১১ সংগঠনের) সমন্বয়ক হোসেন মোহাম্মদ নাহিদ বলেন আমরা সাইফুল রাজীবের পাশে রয়েছি, তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ মিথ্যা, 

জেদ্দার রাজনৌতিক ও সাংস্কৃতিক বেক্তিত্ত সারতাজুল আলম দিপু বলেন, রাজিব সাংবাদিকতায় এর অল্প সময়ে যা করেছে তা প্রশংসার দাবি রাখে। তুমি কাজ চালিয়ে যাও, আমরা তোমার সাথে আছি। অন্যদিকে এসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে এখন পর্যন্ত কোন জবাব না আসলেও জেদ্দার বিভিন্ন গুণী ব্যক্তিদের ফোন পাওয়ার পর এবং সাইফুল রাজীবের সাথে আলোচনা সাপেক্ষে বিষয়গুলো পূর্ণ বিবেচনা করে সাইফুল রাজীবকে পুনরায় ফিরিয়ে নেয়ার সিদ্ধান্ত হতে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন সাধারণ সম্পাদক মাসুদ সেলিম।

এ ব্যাপারে সাইফুল রাজীব জানান, আমি উনাদের নোটিশ হাতে পেয়ে প্রমান চেয়ে পাল্টা নোটিশ দিয়েছি এবং ১ লক্ষ প্রবাসীর সামনে ফেসবুক লাইভে আমার অবস্থান ক্লিয়ার করেছি, কিন্তু তারা আমাকে এখনও কোন জবাব দেয়নি, উল্লেখিত ৪টি অভিযোগ মিথ্যা হলেও আমার কিছু আচরণ উগ্র মেজাজি ছিল, যা আমার করা উচিত হয়নি, আমি এর জন্য ব্যথিত,তবে উনারা অব্যাহতি প্রত্যাহার করলে আমি দুঃখপ্রকাশ করে পুনরায় একসাথে কাজ করতে প্রস্তুত।

No comments:

Post a Comment

Pages