কেন হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হচ্ছে প্রবাসীদের ! - amarkhobor24.com

শিরোনাম

Home Top Ad


Thursday, May 14, 2020

কেন হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হচ্ছে প্রবাসীদের !

একদিকে বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়া মহামারী করোনা ভাইরাস। অন্যদিকে চাকরি নাই, বেতন নাই, খেতে হচ্ছে অনেক কষ্ট করে। এ হচ্ছে বর্তমানে প্রবাসীদের জীবন।

এই মহা সংকট কালে প্রতিদিনই লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে প্রবাসীদের মৃত্যু। সব মৃত্যুই কিন্তু করনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে নয়। অনেক প্রবাসীর মৃত্যু হচ্ছে হূদরোগে আক্রান্ত হয়ে।

কিন্তু কেন প্রবাসীরা হূদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যাচ্ছে হঠাৎ করে। উত্তর খুঁজতে আমরা যোগাযোগ করি বিভিন্ন দেশের প্রবাসীদের সাথে। বিশেষ করে মধ্যপ্রাচ্যে থাকা প্রবাসীরা সবচেয়ে বেশি অসহায় এবং বিপদগ্রস্ত দিনযাপন করছে। কয়েকজন প্রবাসীর সাথে কথা বলে জানা যায় কেন হূদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হচ্ছে প্রবাসীদের।

ঐসকল প্রবাসীরা বলেন বর্তমান সারা বিশ্বের মধ্যে করোনা ভাইরাস প্রাদুর্ভাবের কারণে সকল দেশ লক ডাউন হয়ে আছে। সকল ব্যবসা-বাণিজ্য বন্ধ। যে যার অবস্থানে বন্দী জীবন যাপন করছে। চাকরি ব্যবসা-বাণিজ্য না থাকায় কোম্পানীরা প্রবাসী চাকরিজীবীদের কে কোন ধরনের বেতন ভাতা দিচ্ছে না। এমনকি খাওয়ার পয়সা পাচ্ছেন না তারা। অনেক কষ্টে দিনযাপন করছেন প্রবাসীরা।

প্রবাসে থাকা প্রত্যেক বাংলাদেশীর পরিবার তাদের উপর নির্ভরশীল। তাদের টাকায় পরিবার চলে। চলে সন্তানের লেখাপড়ার খরচ। বাবা-মার চিকিৎসার খরচ। এমনকি ঋণ করে আসা টাকা পরিশোধ করতে হয় তাদেরকে।

এই সকল চিন্তা মাথায় নিয়ে প্রত্যেক প্রবাসী কে এখন দিন কাটাতে হচ্ছে। সবার একটাই প্রশ্ন কখন খুলে যাবে লকডাউন। আবার সবকিছু ঠিক হয়ে গেলেও থাকবে কি আগের সেই সোনার হরিণের চাকরিটা? নাকি নিঃস্ব হয়ে আবার চলে যেতে হবে দেশে।

ঋণের টাকা পরিবারের খরচ বাড়ি থেকে টাকার জন্য চাপ দেওয়া এই সবকিছু মিলিয়ে একজন প্রবাসী হয়তো সামলে উঠতে না পেরে হূদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর স্বাদ গ্রহণ করে।

কুয়েত প্রবাসী চট্টগ্রামের এক ভাই গতকাল হূদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে, তার সহপাঠী একজন বাঙালি বললেন বাড়ি থেকে টাকা দিতে চাপ প্রয়োগ করায় তার পরিবার চিন্তিত হয়ে অবশেষে হার্ট স্ট্রোক করে মারা গেলেন।

ঠিক একইভাবে সৌদি আরবে গত একমাসে ১০ থেকে ১৫ জন প্রবাসী হূদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন। এই মৃত্যুগুলোর একটাই কারণ ইনকাম না থাকায়, পরিবার-পরিজন চালানোর বোঝা নিজের মাথায়, এসব চাপ সহ্য করতে না পারা।

তাই প্রবাসীদের আবেদন এই মুহূর্তে যেন দেশে থাকা তাদের পরিবার পরিজন অবস্থা বুঝতে পারে, এবং টাকা পয়সা পাঠানোর জন্য চাপ প্রয়োগ না করেন। অনেক প্রবাসী আছেন না পারেন সইতে আর না পারেন কইতে, এই দুইটার মাইনকা চিপায় নিজের জীবনটা শেষ করে দিচ্ছে।

লেখকঃ আল মামুন (ব্লগার)

No comments:

Post a Comment

Pages