ভৈরব আনোয়ারা হাসপাতলে জ্বর ও শ্বাসকষ্টে এক তরুনীর মৃত্যু - amarkhobor24.com

শিরোনাম

Home Top Ad


Tuesday, April 7, 2020

ভৈরব আনোয়ারা হাসপাতলে জ্বর ও শ্বাসকষ্টে এক তরুনীর মৃত্যু

মোঃ নাঈম মিয়া ভৈরব, কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধিঃ  
ভৈরবে বেসরকারি হাসপাতালে জ্বর ও শ্বাসকষ্ট অবস্হায় নুরজাহান বেগম ( ১৮)নামে এব তরুনীর মৃত্যু হয়েছে ।মঙ্গলবার (৭ এপ্রিল)সন্ধায় পৌর শহরের বঙ্গবন্ধু সরণীর আনোয়ারা জেনারেল হাসপাতালে এ মৃত্যু হয়েছে । মৃত্যু তরুনীর দেহ থেকে নমুনা সংগ্রহ করে আইইডিসিআরে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে ।তাছাড়া এ ঘটনায় হাসপাতালটিকে অঘোষিত লক ডাউন করা হয়েছে ।
জানা যায় মৃত্যুবরণ করা নুরজাহান বেগম কালিকাপ্রসাদ ইউনয়নের আতকাপাড়া গ্রামের আসাদ মিয়ার কন্যা । এ সয়ম মারা যাওয়া রোগীর পরিবারের ৭ জনকে কোয়ারেন্টোইনে রাখা হয়েছে । এছাড়া হাসপাতালে পাশের ২টি ভবন ও আশে পাশের সড়কে চলাচল সীমিত ও মৃত্যুবরণ করা নুরজাহান বেগমের গ্রামের বাড়িসহ ৩টি বাড়িতেও চলাচল সীমিত করেছে স্থানীয় প্রশাসন।
এসব তথ্য নিশ্চিত করে ভৈরব করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ কমিটির সদস্য সচিব ও উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ বুলবুল আহমেদ আরও জানান, নুরজাহান বেগম করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে কি না তা এখনো নিশ্চিত নয় । সে গত কয়েক মাস যাবৎ জ্বর ও শ্বাসকষ্ট রোগে আক্রান্ত হয়ে স্থানীয় একটি বেসরকারি ক্লিনিকে চিকিৎসা নিচ্ছিলেন । আজ তার জ্বর ও শ্বাসকষ্ট বেড়ে যাওয়ায় তিনি দুপুরে আনোয়ারা জেনারেল প্রাঃ হাসপাতালে ভর্তি হলে সন্ধায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান ।তার নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা করার জন্য আইইডিসিআরে পাঠানো হয়েছে ।
এ সময় এ রোগীর মৃত্যুর খবর পেয়ে সন্ধ্যায় হাসপাতালে আসেন ভৈরব উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লুবনা ফারজানা, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ কমিটির সদস্য সচিব ডাঃ বুলবুল আহমেদ ও স্থানীয় পুলিশ প্রশাসন ।পরে তারা হাসপাতালের সামনে সড়কে অবস্থান নিয়ে চলাচল সীমিত করে দেওয়া হয়েছে ।এছাড়াও হাসপাতালে কর্মরত চিকিৎসক ও কর্মচারীসহ সবাইকে ঢুকতে ও বেড় হতে নিষেধ করা হয়েছে ।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লুবনা ফারজানা জানান, ১৮ বছর বয়সী ওই গৃহবধূ জ্বর, সর্দি ও শ্বাসকষ্টে মারা গেছেন। তাৎক্ষণিক হাসপাতালটি লকডাউন করা হয়েছে। সেই সঙ্গে হাসপাতালের আশেপাশে ও সামনের রাস্তাটি অঘোষিত লকডাউন করা হয়েছে।তাছাড়া সরকারি রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) প্রটোকল অনুযায়ী লাশের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে। লাশটি আইইডিসিআর’র নিয়মানুযায়ী দাফন করা হবে।

No comments:

Post a Comment

Pages