চিকিৎসকের মামলায় ভৈরবের সাহসী সাংবাদিক রুবেল জামিনে মুক্ত ||amarkhobor24.com - amarkhobor24.com

শিরোনাম

Home Top Ad


Saturday, April 25, 2020

চিকিৎসকের মামলায় ভৈরবের সাহসী সাংবাদিক রুবেল জামিনে মুক্ত ||amarkhobor24.com

সাইদুর রহমান,বিশেষ প্রতিবেদক,২৫ এপ্রিল, ২০২০।  
কিশোরগঞ্জের ভৈরবে চিকিৎসকের  ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ৩১ ধারার মামলায় আটককৃত  সাহসী  সাংবাদিক এম আর রুবেল গত শুক্রবার ( ২৪ এপ্রিল ) বিকেলে বিশেষ আদালতের মাধ্যমে জামিনে মুক্তি পেয়ে বাড়ি ফিরেছেন। সম্প্রতি কোভিড-১৯ করোনা ভাইরাস সংক্রমণ বিষয়ে সরকারি চিকিৎসা কার্যক্রম নিয়ে তার নিজস্ব ফেসবুক আইডিতে কয়েকটি অনুসন্ধানী লেখা প্রকাশ করেন। বিষয়টি নিয়ে তোলপাড় সৃষ্টি হয় ভৈরবের জনগনের ভিতর।        
এসব ঘটনায় গত (২৪ এপ্রিল) গভীর রাতে ভৈরব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও প.প. কর্মকর্তা ও উপজেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির সদস্যসচিব ডাঃ বুলবুল আহম্মদ বাদী হয়ে ভৈরব থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করার পর ওই রাতেই তাৎক্ষণিক পুলিশ ঐ সাংবাদিক কে বাসা থেকে গ্রেফতার করে, সকাল বেলায় কিশোরগঞ্জ জেল হাজতে প্রেরণ করেন । তিনি দৈনিক ইনকিলাব পত্রিকার ভৈরব প্রতিনিধি।
জানা যায়, এম আর রুবেল ভৈরবের সাহসী সাংবাদিক হিসেবে পরিচিত৷ বিভিন্ন সময় অনিয়মের বিরুদ্ধে সত্য প্রকাশ করায় প্রভাবশালী কিছু মহল ও মানুষের  বিরাগভাজন হয়েছিলেন তিনি। এছাড়াও কতিপয় সুবিধাবাদী কিছু অসাধু  গণমাধ্যম কর্মীরাও তার কাজে নাখোশ ছিলেন৷ সাংবাদিক  রুবেলকে ঘায়েল করতে পিছন থেকে  ঐসকল লোকজনের হাত থাকতে পারে বলে ধারণা অনেকের।  

এদিকে ভৈরবের সাহসী সাংবাদিক রুবেলের বিরুদ্ধে মামলা ও আটকের খবরে তীব্র প্রতিবাদ করেতে দেখা গেছে ভৈরবের সচেতন জনগনকে।  তারা সামাজিক মাধ্যমে রুবেলের পক্ষে অবস্থান নিয়েছেন। সচেতন মানুষের বক্তব্য হচ্ছে, ভৈরবের মানুষের পক্ষে তথ্য সমৃদ্ধ একটি লেখা প্রকাশ করেন। স্বাধীন দেশের নাগরিক হিসেবে তার স্পষ্ট স্বাধীন  মতামত প্রকাশের অধিকার রয়েছে। মামলা দিয়ে একজন সাংবাদিকদের টুঁটি চেপে ধরা দুঃখজনক এবং নিন্দনীয়। এছাড়াও সচেতন মহল ও নাগরিক সমাজের লোকজন সাংবাদিক  রুবেলের পক্ষে জোরালো অবস্থান নিতে দেখা যায় সামাজিক মাধ্যমে। একজন সাহসী সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা ও হয়রানির পরেও ভৈরবের  কতিপয় সাংবাদিকদের রহস্যজনক নীরবতাকে ধিক্কার জানাচ্ছেন জনগন।                                      

করোনা ভাইরাস পরিস্থিতিতে  পএিকার এজেন্টগণ ঢাকা থেকে পত্রিকা আনা বন্ধ করে দেওয়ায়, সাংবাদিক রুবেল তার নিজস্ব ফেসবুক ওয়ালে ভৈরবে করোনার নমুনা সংগ্রহে গাফিলতি এবং রোগীর সংস্পর্শে আসা শতশত নারী পুরুষ এর নমুনা যত্রতত্র ভাবে সংগ্রহের অভিযোগটি সরেজমিনে তদন্ত ও   প্রমানাধি সংগ্রহ করে সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করার জন্য লিখেছিলেন।

 মামলার বাদী ডাঃ বুলবুল আহম্মদ সাংবাদিকদের বলেন, ‘করোনার জন্য ভৈরব এখন স্পর্শকাতর এলাকা । এখন পর্যন্ত ৪৩ জন আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে ২১ জন স্বাস্থ্যকর্মী এবং ৯ জন পুলিশের সদস্য । উপজেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটও আছেন আক্রান্তের তালিকায় । আমরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে দিনরাত কাজ করছি। অথচ এম আর রুবেল এই বিষয়ে নিজের পত্রিকায় না লিখে মনের মতো করে ফেসবুকে লিখেছেন। এতে আমাদের কর্মীদের মনোবল নষ্ট হয়েছে । ফলে প্রতিকার পেতে আইনের আশ্রয় নিয়েছি।

তবে সাংবাদিক এম আর রুবেল বলেন, আমার লেখায় এতটুকু ভুল ছিলনা। প্রতিহিংসারও কিছু ছিল না। দেশের মানুষের ভালোর কথা ভেবে প্রমানাধি সংগ্রহ করে সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করার জন্য লিখেছিলাম। 

ভৈরব থানার অফিসার ইনচার্জ ( ওসি ) মোঃ শাহিন সাংবাদিকদের বলেন, মামলটি হয়েছে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ৩১ ধারায়। এম আর রুবেলকে শুক্রবার সকালে কিশোরগঞ্জ কারাগারে পাঠানো হয়েছিলো।

সাংবাদিক এম আর রুবেলের নামে হয়রানীমূলক মামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান ভৈরব সহ 
বিভিন্ন জেলা ও  উপজেলার সাংবাদিক সমাজ।  অবিলম্বে এই হয়রানীমুলক মামলা তুলে নেওয়ার দাবি জানানো হয়।

No comments:

Post a Comment

Pages