রামগঞ্জের ১টি ইউনিয়নের মানুষ হাহাকার করছে খাদ্যের জন্য ||amarkhobor24 - amarkhobor24.com

শিরোনাম

Home Top Ad


Friday, April 24, 2020

রামগঞ্জের ১টি ইউনিয়নের মানুষ হাহাকার করছে খাদ্যের জন্য ||amarkhobor24

রামগঞ্জ প্রতিনিধিঃ
লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে ৯ নং ভোলাকোট ইউনিয়ন পরিষদে বসবাসরত বাসিন্দাদের জন্য এখনও অসহায় ছিন্নমূল মানুষদের মাঝে সরকারি তেমন কোনো ত্রাণসামগ্রী পৌঁছেনি। এতে অসহায় কর্মহীন মানুষ গুলো গৃহবন্দী হয়ে অনেক কষ্টে জীবন যাপন করছে।
করোনার মহামারী ভাইরাস এর আতংকে উপজেলার সাধারণ জনগণ। বর্তমানে সারা বিশ্বে করোনা আতঙ্কে প্রায় সবাই রয়েছেন অনির্দিষ্টকালের জন্য হোম কোয়ারেন্টাইনে। অনেকে তো কর্মহীন হয়ে বাড়িতে জীবন কাটছে। আবার গৃহবন্দী থেকে অনেকেই হাঁপিয়ে উঠেছেন!

এই ইউনিয়নে প্রায় ২ হাজারেরও বেশি পরিবারের বসবাস। ১ হাজারের ও বেশি পরিবার আছে অসহায় দিন মজুর। করোনা মহামারী প্রতিরোধে বর্তমানে সারা বাংলাদেশ লকডাউন ঘোষণা করা হয়। তারি সূত্রে সরেজমিনে গুরে দেখা যায় এমন চিত্র।

ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বারগণ জানিয়েছেন, আমাদের কাছে স্বল্প কিছু ত্রাণসামগ্রী আসছে।আর সেটা বিতরণ করা হয়েছে। আর যারা এখনো পায়নাই খুব শীঘ্রহী তাদের কাছে ত্রাণ পৌঁছে যাবে বলে নিশ্চিত করেন। 

এতে গৃহবন্দী ও কর্মহীন গ্রামের বাসিন্দারা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ৮ বছর ধরে জনপ্রতিনিধিদের প্রতিশ্রুতি চারদিক থেকে আমাদেরকে ঘিরে রাখছে। কখনও সরকারি-বেসরকারি সাহায্য সহযোগীতা আমারদের মাঝে পোঁছাইনি।

টেলিভিশন খুললে দেখি সবদিকে সরকার ত্রাণ দিচ্ছে। জীবনে আরকত ভাগ্যপরীক্ষা আল্লাহ আমাদেরকে দিবে। অভাব আমাদের নিত্যদিনের সঙ্গী। এ গ্রামের শতাধিক নারী ও পুরুষ আছে ভিক্ষা করতেন গ্রামে-গ্রামে। এখন করোনা-ভাইরাসের কারণে কেউ আর ভিক্ষা দেয় না। মানুষের বাড়িতে গেলে ভিক্ষা থাক দূরের কথা অশ্লীল আচারণও করে।

স্থানীয় ইউপি মেম্বারগন তালিকা করেছে প্রায় এক মাস হয়েছে। এবং প্রত্যেক বাড়ীতে গিয়ে তারা সবার এনআইডির ফটোকপি নিয়ে গেছেন। কিন্তু এখনো কোন ত্রাণ আমারদের মাঝে আসেনি।

ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মোঃ বশির আহমদ মানিক বলেন, সীমিত বরাদ্দ তাই সরকারি ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করতে হিমশিম খেতে হয়। আর আমারদের ইউনিয়নে যা আসছে আমরা সব টুকুই বিতরণ করে দিয়েছি। এমপি মহোদয়ের ত্রাণ সামগ্রীও আমাদের কাছে আসেনি। আসলে সেটিও মানুষের মাঝে বিতরণ করবো।

No comments:

Post a Comment

Pages