ইতিহাস ছাপিয়ে বাংলার মানচিত্রে দেশ পরিচালনায় আসবে ইসলামী আন্দোলন ||রবিউল ইসলাম ||amarkhobor24 - amarkhobor24.com

শিরোনাম

Home Top Ad


Sunday, March 8, 2020

ইতিহাস ছাপিয়ে বাংলার মানচিত্রে দেশ পরিচালনায় আসবে ইসলামী আন্দোলন ||রবিউল ইসলাম ||amarkhobor24

ইতিহাস গড়ার কারিগর ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের রাহবার.....

চলমান দেশের আনাচে কানাচে যাদের রয়েছে ঝাঁকে ঝাঁক তরুন,যুবক,কিশোর,বৃদ্ধ সমর্থক ও সমর্থন।পিছিয়ে নেই ঘরের চার দেয়ালের মাঝে নিয়ন্ত্রনীয় মা বোনেরা।বাপ,ভাই,ছেলে,স্বামীদেরকে তাগিদ দিচ্ছে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের সাথে একাত্মতা পোষন করে মুসলমানদের হত্যাকারী ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্রমোদী এর আগমন ঠেকাও।দেশের মুসলমানদের পক্ষের শক্তি বাড়াও।
চলমান মাসের ঠিক প্রথম দিকে ইতিহাসের পাতায় অংশ নিয়েছে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ নামক ইসলামী জনপ্রিয় সংগঠন।ইতিহাসের মানচিত্রে ঝটিকা কর্মসূচি দিয়ে কোনোপ্রকার দলীয় অর্থ সঞ্চালকের সিস্টেম ছাড়াই বিপুল সংখ্যক লোকের সমাগম ঘটিয়ে তাক লাগিয়ে দিয়েছে এই রাজনৈতিক দলটির কর্ণধাররা।সবচেয়ে আলোচনার বিষয় হচ্ছে মাত্র দুদিনের ব্যাবধানে এমন সমাবেশ কোটি কোটি টাকা কাগজের মতো ছিটিয়েও অন্য কোনো নিবন্ধিত/অনিবন্ধিত রাজনৈতিক দলের পক্ষে লোক সমাগম সম্ভবইনা!

একজন ক্ষমতাসীন প্রভাবশালী নেতার স্বীকারোক্তি অকপটেই যে,আমরা সত্যিই পারতামনা এমন আয়োজন লক্ষ,কোটি টাকার বিনিময়েও তারপরে আবার শুধু পুরুষ দ্বারা!এত্তো টুপিওয়ালা দেখিনি এভাবে আরেক টুপি ওয়ালাদের ডাক পাওয়া মাত্র সাড়া দিতে।সত্যিই আমি যেনো ভিডিওটা দেখে মনে করেছিলাম এখানে মনে হচ্ছে সাদা কাপড় দিয়ে আচ্ছাদন করা একটি ময়দান!

টুপিওয়ালাদের এই সমাবেশ সত্যিই নজর কাড়ার মতো।রাজপথে টুপিওয়ালারা নামলে সহিংসতা হতে দেখিনা,গরীবের জীবিকা নির্বাহের উৎসগুলির উপর জ্বালাও পোড়াও দেখিনা।ঠিক যেই টপিকে আন্দোলন করে সেই টপিক এর উপর সমাপ্তি নিয়েই আবার ঘরে ফেরার আয়োজন সম্পন্ন করে।আবারও বলছি টুপিওয়ালাদের প্রতি সম্মান বেড়ে গেলো আমার আর আমি মনে করি তারা তাদের দাবী যৌক্তিকভাবে প্রকাশ করতেছে এবং সরকারের উচিৎ তাদের এই আন্দোলনের বিষয়বস্তুর ব্যাপারটা আগ্রহ সহকারে চিন্তায় নেয়া।

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এ যাবৎকালে বাংলার ইতিহাসে প্রত্যেকটি সফল সমাবেশ ঘটিয়েছেন দলীয়ভাবে আর্থিক অনুদান প্রদান ছাড়াই যা বাংলার ইতিহাসে কর্মী,সমর্থকদের অর্থায়নে এমন সফল সমাবেশ অন্য কোনো রাজনৈতিক দলের মাধ্যমে দেখা যায়নি।স্ফতঃস্ফুর্তভাবে কর্মী,সমর্থকদের এমন আগ্রহের মাঝে বিপুল পরিমান সমাবেশ ঘটানোর চেষ্টা সত্যিই বিরল।

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের ডাকে আগত মানুষগুলি কি সবই ইসলামী আন্দোলন করে?
আসলে ব্যাপারটি এমন নয়।বরং হাজারো মানুষ এই দলের আন্দোলনীয় সিস্টেমকে শ্রদ্ধা করে,ভালবাসে।কারণ এরা যা করে ইসলাম প্রতিষ্ঠা কেন্দ্রিক ইস্যু নিয়েই করে।ব্যাক্তির জন্যে এরা মাঠে নামলেও সেটা দেখা যায় ইসলামীয় অনুশাসনের পক্ষে,রাস্ট্রভিত্তিক ইস্যু নিয়েও মাঠে নামলে দেখা যায় সেখানেও ইসলামের অগ্রগতির উপর আন্দোলন।প্রতিটি প্রতিবাদই যেনো ওদের এক একটা ইসলামের শাসন,নীতিপ্রয়োগের উপর স্তম্ভ নির্মাণের মতো!

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের একটা বিশাল কার্যক্রম এর অংশ হলো পীর-মুরিদী প্রথা।যেটা কুরআন, হাদীস ও সুন্নাহের উপর প্রতিষ্ঠিত।হক্কানী আলেমদের সিলিসিলায় চলে আসা এই পীর-মুরিদী কার্যক্রমের মূল উদ্দেশ্য হলো মানুষকে জান্নাতের পথে ধাবিত করা যেনো আল্লাহর হুকুম আহকাম মেনে আল্লাহর ইবাদাত বন্দেগীতে নিজেদের পারিবারিক,আর্থিক,সামাজিক,রাষ্ট্রিক জীবনকে পরিচালিত করতে পারে।

তবে আজ পর্যন্ত ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর রাহবারদেরকে দেখিনি পীর-মুরিদী টিকিয়ে রাখার লক্ষ্যে কোনো আন্দোলন করতে বরং পীর-মুরীদরা ইসলাম প্রতিষ্ঠার নানা কর্মসূচিতে মিশে একাকার হয়ে যান।অন্যান্য দলের প্রধান নেতাদের পাশে সাধারন কর্মীরা ভীড়তে গেলে অনেক সাধনা করতে হয় অথচ এই সংগঠনের নেতা কর্মী সমর্থকরা কে পীর আর কে মুরীদ তা চেনার উপায় থাকেনা।

আরেকটা জিনিস আমি খুব লক্ষ্য করে দেখেছি যে,কোনো দলের নেতাকে দেখিনি সুবিধামতো পজিশন ছাড়া রাজপথে বক্তব্য দিতে তাও আবার আগুনঝড়া!কিন্তু এই দল বা সংগঠনের মুল নেতাদের দেখেছি সাধারন ভ্যান,রিক্সা কিংবা পিক আপে করে নিরাপত্তা কর্মী ছাড়াই বুক চিতিয়ে রক্তচক্ষু আর ঝাঁঝালো আওয়াজে শ্লোগান,বক্তব্য দিয়ে রাজপথে কাঁপিয়ে দিতে।

কিসের অভাব ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশে বলতে পারবেন?
আমি আমার দৃষ্টিকোন দিয়ে বলছি,রাষ্ট্রীয় ক্ষমতাটুকু ছাড়া এই সংগঠনে অবশিষ্ট কিছু নেই বললেই চলে।এই সংগঠনটির লক্ষ্য হচ্ছে পুর্বের ক্ষমতাসীন দলগুলোর মতো শোষনীয় শাসনের বিপরীতে অবস্থান নেয়া।এবং আগে দলের চতুর্দিকের কার্যক্রম সুগঠিত করা তারপর আল্লাহ চাইলে ক্ষমতাকে অর্জন করে আল্লাহর সন্তুষ্টির লক্ষ্যে মহামানব রাসুল(সাঃ) এর আদর্শমতে পরিচালিত করা।

যেভাবে আছে বা চলতেছে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের সাংগঠনীক কার্যক্রম তাতে ধরে নেয়া যেতে পারে এই সংগঠন এই লাল-সবুজের বাংলার মানচিত্রে ইসলামী শাসন কায়েম করেই ছাড়বে ইনশাআল্লাহ।

লেখক,
মুহাম্মাদ রবিউল ইসলাম  
লেখক,কলামিস্ট ও সাংবাদিক 

No comments:

Post a Comment

Pages