রামগঞ্জে বিধি উপেক্ষা করে মুক্তিযোদ্ধা যাছাই বাছাই কমিটি গঠন মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে ক্ষোভ - amarkhobor24.com

শিরোনাম

Home Top Ad


Wednesday, February 12, 2020

রামগঞ্জে বিধি উপেক্ষা করে মুক্তিযোদ্ধা যাছাই বাছাই কমিটি গঠন মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে ক্ষোভ

রামগঞ্জ প্রতিনিধি :লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা যাছাই বাছাই নবগঠিত কমিটি সরকারী বিধি উপেক্ষার অভিযোগ পাওয়া গেছে। সৃষ্ট ঘটনায় উপজেলা মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে চরম ক্ষোভসহ হতাশা বিরাজ করছেন। 
সৃষ্ট ঘটনায় যুদ্ধকালীন কমান্ডার সাবেক এমপি বীরমুক্তিযোদ্ধা এমএ গোফরান,যুদ্ধকালীন কমান্ডার আবুল হোসেন সূফি (বিএলএফ)সহ কয়েকজন মুক্তিযোদ্ধাসহ কয়েকজন মুক্তিযোদ্ধা  বির্তকিত কমিটি বাতিল করে সরকারী বিধিমোতাবেক পুনরায় কমিটি ঘোষনার দাবী জানিয়ে জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কউিন্সিল (জামুকা) স্মারক লিপি দেন। 
সূত্রে জানান জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিল (জামুকা) নির্দেশনায় উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা যাছাই বাছাই কমিটিতে সভাপতি পদে সংসদ সদস্য মুক্তিযোদ্ধা হতে হবে। মুক্তিযোদ্ধা যদি সংসদ সদস্য না তা হলে জেলা প্রশাসক কর্ত্তৃক ভারতীয় তালিকা,লালবার্তাভূক্ত যুদ্ধকালীন কমান্ডারকে সভাপতি পদে দায়িত্ব রাখতে হবে। কমিটিতে সদস্যপদে জেলা প্রশাসক কর্ত্তৃক বির্তকিতমুক্ত মুক্তিযোদ্ধাদের নাম অন্তভুক্ত থাকতে হবে। সদস্য সচিবপদে উপজেলা নির্বাহী অফিসার থাকতে হয়। জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিল কর্ত্তৃক গত ৯ই মে ২০১৯ইং তারিখে নির্দেশ মোতাবেক জেলা প্রশাসক সরকারী বিধি উপেক্ষা করে যুদ্ধাকালীন কমান্ডার বিহিন আকম রুহুল আমিনকে সভাপতি,মানসিক বিকার তোছাদ্দেক হোসেন মানিক মালকে সদস্য পদে দেওয়া হয়। বির্তকিত কমিটির সভাপতি পদে আকম রুহুল আমিন,সাধারণ সদস্য তোছাদেক হোসেন মানিক মাল কয়েকজন মুক্তিযোদ্ধাদেরকে মুক্তিযোদ্ধা সদস্য পদে তালিকাভ’ক্ত পাইয়ে দিবে কয়েক লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়।
উল্লেখ্য জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিল (জামুকা) এর ৬১তম সভায় সিদ্বান্তমতে  গত ১৯.০২.২০১৭ইং সালে সাবেক এমপি বীরমুক্তিযোদ্ধা (বিএলএফ), যোদ্ধাকালীন কমান্ডার বিএলএফ সদস্য আবুল হোসেন সূফীসহ ৫সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়। একটি দুষ্কৃতি মহল হাইকোর্টে রিট করে যাছাই বাছাই স্থগিত করেন। সদ্য কমিটিতে সভাপতি পদে দায়িত্বরত আকম রুহুল জানান আমার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ সত্য নহে।

No comments:

Post a Comment

Pages