রামগঞ্জে শিক্ষিকার বিরুদ্ধে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ অসারণের দাবী - amarkhobor24.com

শিরোনাম

Home Top Ad


Sunday, February 2, 2020

রামগঞ্জে শিক্ষিকার বিরুদ্ধে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ অসারণের দাবী

রামগঞ্জ নিউজ ডেস্ক: 
লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জের বিষ্ণুপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা মনোয়ারা বেগমের বিরুদ্ধে ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতি অভিযোগ উঠেছে। 
শনিবার সকাল দশটায় বিদ্যালয় শ্রেণী কক্ষ বন্ধ,সকল শিক্ষকের অনুউপস্থিত,জাতীয় পতাকা উত্তোলণ না করায় ছাত্র -অভিভাবকদের মাঝে ক্ষোভ সৃষ্টি হয়।
 শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয় নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির কারণে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকার অপসারণ দাবী করে মিছিলও করেন।
সকাল দশটা বেজে উঠলে ক্ষুব্ধ গ্রামবাসি সহ অভিভাবক মনির হোসেন শেখ,সফিকুল ইসলাম, রাসেল হোসেন, আব্দুর রব,মোহাম্মদ শাহআলম,এমরান,মোতালেব,কালাম, সুজন,জাহাঙ্গীর,এরশাদ আলী  বলেন- প্রতিদিনের ন্যায় আজকে শনিবার সকাল দশটার। বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষিকাসহ সহকারী শিক্ষকেরা অনুউপস্থিত,সকল শ্রেণী কক্ষে তালা জ্বলানো,জাতীয় পতাকা উত্তোলন বিহিন, বিদ্যালয় বারান্দা মেঝে ও জানালা সিকেলে বইয়ের ব্যাগ রেখে দিকবিদিক ঘুরাঘুরি করতে দেখেন।
বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষিকা মনোয়ারা বিরুদ্ধে অর্থ কেলেংকারি, জালজালিয়াতি অভিযোগ, শিক্ষক ও অভিভাবকদের সাথে অসৌজন্যমূলক আছারণ,স্লিপ, প্রাক প্রাথমিক নামে বরাদ্দকৃত অর্থ লোপাট,বিদ্যালয় উন্নয়ন নামে সবগুলো অর্থ অাত্মসাতের অভিযোগ করেন। শিক্ষার্থীদের মাধ্যমে বিদ্যাল পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা, জাতীয় পতাকা উত্তোলণ সহ বিদ্যালয দরজা জানালা খোলাও বন্ধের দায়িত্ব দেন প্রধান শিক্ষিকা,
বিনামূল্য বই বিতরণে অর্থ আদায়,উপবৃত্তি তালিকা করণে  ব্যাপক অনিয়ম, জাতীয় দিবসে  দায়সারাভাবে অনুষ্ঠান সহ নানা অনিয়ম তুলে ধরেন।
ওই সময়ে ক্ষুব্ধ গ্রামবাসিরা বলেন গ্রামের কর্থিত কিছু স্বার্থন্বেষী মহলকে ম্যানেজ করে প্রধান শিক্ষিকার অযোগ্যতা কারনে বিদ্যালয় শিক্ষার মান ভেঙ্গে পড়ে।
ফলে অভিভাবক সহ শিক্ষার্থীরা দিশেহারা হয়ে পড়েন।
গ্রামবাসি অতিদ্রুত শিক্ষিকা মনোয়ারা বেগমের অপসারণ দাবী করেন। 
বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষিকা মনোয়ারা বেগম বলেন বিদ্যালয় আসার পথে স্বজনদের সাথে আলাপ করার কারনে বিদ্যালয় আসতে বিলম্বিত হয়েছে। অর্থসহ অন্যান্য অনিয়মগুলো নিয়ে গত বুধবার সভাপতি সহ সমাধান করেন।
বিদ্যালয় সভাপতি আজাদ হোসেন শেখ জানান সকাল ৯টার স্থলে দশটা বিদ্যালয় বন্ধ থাকলে প্রধান শিক্ষিকা বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
উপজেলা প্রাথমিক সহকারী শিক্ষা অফিসার মোহাম্মদ আব্দুল  মোহাইমেন বলেন ঘটনাটি তদন্ত সাপেক্ষে সত্যতা পেলে অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষিকার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বস্থ করেন।

No comments:

Post a Comment

Pages