ভোটাধিকার হরণ ও ভোট ডাকাতির এক বছর উপলক্ষে আলোচনা সভা - amarkhobor24.com

শিরোনাম

Home Top Ad


Wednesday, January 1, 2020

ভোটাধিকার হরণ ও ভোট ডাকাতির এক বছর উপলক্ষে আলোচনা সভা

নিরপেক্ষ নির্বাচনের ইচ্ছা না থাকলে জনগণের টাকা খরচ করার অধিকার সরকারের নেই -প্রিন্সিপাল ইউনুছ আহমাদ
ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মহাসচিব প্রিন্সিপাল মাওলানা ইউনুছ আহমাদ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন দেয়ার ইচ্ছা না থাকলে জনগণের টাকা খরচ না করার সরকারের প্রতি আহŸান জানিয়েছেন। গণভবন থেকে মেয়র ও কাউন্সিলরদের নামের তালিকা ঘোষণা দিয়ে গ্যাজেট করে নিন। জনগণের সাথে তামাশা করবেন না। তিনি বলেন, জনগণের টাকার দাম আছে। তিনি তামাশার নির্বাচনের পরিবর্তে সেই খরচ শীতার্তদের মাঝে বিতরণ করলে সাধারণ মানুষ উপকৃত হবে। তারপরও জনগণেল সাথে নির্বাচনের নামে প্রহসন করবেন না।

সোমবার বিকেলে ‘ভোটাধিকার হরণ ও ভোট ডাকাতির এক বছর’ উপলক্ষে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ঢাকা মহানগর দক্ষিণের উদ্যোগে পুরানা পল্টনস্থ আইএবি মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। ঢাকা মহানগর দক্ষিণ সভাপতি মাওলানা ইমতিয়াজ আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা গাজী আতাউর রহমান, ইঞ্জিনিয়ার আশরাফুল আলম, মুক্তিযোদ্ধা আবুল কাশেম, মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন সাকী, আলহাজ্ব আলতাফ হোসেন, মুহা. ফজলুল হক মৃধা, অধ্যাপক নাছির উদ্দিন, মাওলানা নুরুন্নবী তালুকদার প্রমূখ।

মাওলানা গাজী আতাউর রহমান বলেন, ২০১৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর কালোরাতে মানুষের ভোটাধিকারের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়েছিল ক্ষমতাসীন সরকার ও তাদের দোসররা। এই দিনটি দেশবাসীর কাছে তাদের ভোটাধিকার হরণের কালোরাত হিসাবে কলঙ্কিত হয়ে থাকবে। এই রাতেই হত্যা করা হয়েছিল মানুষের নাগরিক অধিকারকে।’

সভাপতির বক্তব্যে মাওলানা ইমতিয়াজ আলম বলেন, গত বছরের ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত একাদশ সংসদ নির্বাচনে ব্যাপক কারচুপির অভিযোগে ফল প্রত্যাখ্যান করেছিলো ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ। তিনি বলেন, আমরা নির্বাচনে হারি বা জিতি  এটা পরের কথা, কিন্তু আওয়ামী লীগ তো নির্বাচনের নাম ভোট ডাকাতি করে পৃথিবীর ইতিহাসে অভাবনীয় রেকর্ড সৃষ্টি করেছে। ভোট ডাকাতির পরও আমরা নির্বাচনে অংশ নেই এ কারণে যে, আওয়ামী লীগের ভোট ডাকাতদের চরিত্র দেশবাসীর সামনে তুলে ধরার জন্য।

No comments:

Post a Comment

Pages