কুমিল্লাতে বনভোজনে গিয়ে লাশ হয়ে ফিরল লক্ষ্মীপুরের স্কুলছাত্রী সামিয়া - amarkhobor24.com

শিরোনাম

Home Top Ad


Friday, January 31, 2020

কুমিল্লাতে বনভোজনে গিয়ে লাশ হয়ে ফিরল লক্ষ্মীপুরের স্কুলছাত্রী সামিয়া


নিজস্ব প্রতিবেদক : বিদ্যালয়ের শিক্ষক এবং শিক্ষার্থীদের সাথে বনভোজনে গিয়ে লাশ হয়ে বাড়ি ফিরলেন ফৌজিয়া আফরিন সামিয়া নামে ৮ বছরের এক শিশু শিক্ষার্থী। বৃহস্পতিবার বিকেলে কুমিল্লার একটি পার্কে বিদ্যালয় কর্তৃক আয়োজিত বনভোজনে যাওয়ার পর পানিতে ডুবে তার মৃত্যু হয় বলে দাবি বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের।

তবে এ ঘটনাকে দায়িত্বহীনতা মনে করছেন সচেতন মহল। আর বিষয়টিকে হত্যা বলে দাবি করছে শিশুটির পরিবার। বৃহস্পতিবার রাতে সামিয়ার মৃতদেহ কুমিল্লা থেকে লক্ষ্মীপুরে নিয়ে আসা হয়। পরে এ্যাম্বুলেন্সে মৃতদেহ রেখে পালিয়ে যায় ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা।

সামিয়া লক্ষ্মীপুর পৌর শহরের ইলেভেন কেয়ার একাডেমীর ছাত্রী ও সদর উপজেলার ভবানীগঞ্জ ইউনিয়নের বাসিন্দা গিয়াস উদ্দিনের কন্যা। গিয়াস উদ্দিন পৌরসভার ৭ নম্বর ওয়ার্ড সমসেরাবাদ এলাকায় বসবাস করতেন। কমলনগর উপজেলার তোরাবগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের সচিবের দায়িত্বে রয়েছেন তিনি।

এ ঘটনার পর থেকে শোকে কাতর পুরো পরিবার। মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে ওই রাতে নিহতের স্বজনসহ স্থানীয়রা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের আঙ্গিনায় ভিড় করে ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

সামিয়ার পরিবার সূত্রে জানা যায়, পৌর শহরের শেখ রাসেল সড়কে অবস্থিত ইলেভেন কেয়ার একাডেমী থেকে বৃহস্পতিবার সকালে ৫০জন শিক্ষার্থী নিয়ে কুমিল্লার একটি পার্কে বনভোজনে যায়। বিকাল ৩টায় প্রধান শিক্ষকের মুঠোফোনেও বাবার সাথে কথা হয় সামিয়ার। ঘণ্টাখানেক পর মৃত্যুর সংবাদ পান তার বাবা গিয়াস উদ্দিন।

তারা জানান, বনভোজনে যেতে দিতে না চাইলেও শিক্ষকরা জোর করে তাকে নিয়ে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে। এ ঘটনার বিচার দাবি করেন সন্তান হারা এ পরিবারটি। এ ব্যাপারে নিহতের সহপাঠীরা কেউ মুখ খুলতে রাজি নয়নি।

সালমা নামের ওই বিদ্যালয়ের এক সহকারি শিক্ষক বলেন, পানিতে খিচুনি উঠলে হাসপাতালে নিলে ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
এদিকে, ঘটনার পর প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষকসহ অন্যরা আত্মগোপনে রয়েছে, তাদের মুঠোফোনও বন্ধ রয়েছে।

সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা শফিকুর রেদোয়ান আরমান শাকিল জানান, বনভোজনে ছাত্রীর মৃত্যুর বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে।
এ ঘটনায় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অসচেতনতা ও গাফলতিকে দায়ী করেন সচেতন মহল। একই সঙ্গে শিক্ষার নামে গড়ে উঠা এসব গলাকাটা বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান বন্ধের দাবী জানান তারা

No comments:

Post a Comment

Pages