সিটি নির্বাচনে ফের চমক দেখাবে চরমোনাই পীরের হাতপাখার প্রার্থীরা ||amarkhobor24 - amarkhobor24.com

শিরোনাম

Home Top Ad


Friday, January 10, 2020

সিটি নির্বাচনে ফের চমক দেখাবে চরমোনাই পীরের হাতপাখার প্রার্থীরা ||amarkhobor24

ফের সিটি নির্বাচন নিয়ে মাঠে নেমেছে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর দুই প্রার্থী।আগামী ৩০ জানুয়ারি ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করর্পোরেশন নির্বাচন।আওয়ামী লীগ বিএনপির সাথে পাল্লা দিয়ে অংশ নিচ্ছেন ইসলামী আন্দোলন বালাদেশ।ঢাকা উত্তরে হাতপাখা নিয়ে লড়বেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি তরুণ রাজনীতিবিদ ও নগর চিন্তক প্রিন্সিপ্যাল হাফেজ মাওলানা ফজলে বারী মাসউদ এবং দক্ষিণে লড়বেন দলের কেন্দ্রীয় নেতা শিল্পপতি জনাব আব্দুল রহমান। আওয়ামী লীগ বিএনপির পর সব চেয়ে বেশি আলোচিত দল চরমোনাই পীর সাহেব এর নেতৃত্বাধীন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ।বিগত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৩০০ আসনে অংশ নিয়ে তৃণমূলে পরিচিতি লাভ করেছে।সুষ্টু নির্বাচন হলে বিগত জাতীয় নির্বাচনে চমক দেখাত দলটি।নির্বাচনী প্রচারণায় নৌকা ধানের শীষের সাথে পাল্লা দিয়েছিল হাতপাখা।
গত ৩ জানুয়ারি জনপ্রিয় পত্রিকা "প্রথম আলোর " রিপোর্ট ছিল' আবারো চমক দেখাবে প্রার্থীরা।বিশাল রিপোর্ট থেকে জানলাম বিগত সিটি নির্বাচনে গুলোতে আওয়ামী লীগ বিএনপির পরে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর অবস্থান ছিল তৃতীয়।এমন কি জাতীয় পার্টির প্রার্থীকে পেছনে পেলেছে ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থীরা।বিগত খুলনা সিটি নির্বাচনে জাতীয় পার্টির প্রার্থী লাঙ্গল প্রতীকে পেয়েছিল ১ হাজার ভোট।পক্ষান্তরে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর প্রার্থী হাতপাখা প্রতীকে পেয়েছিল ১৪ হাজার ভোট। কারচুপির নির্বাচনে ১৪ হাজার ভোট পাওয়া অনেকটা চ্যালেন্জের ছিল।রংপুর, নারায়ণগঞ্জ,গাজীপুর,রাজশাহী,সিলেট,বরিশাল,চট্টগ্রাম ও  ঢাকা সিটি নির্বাচনে ভোটের অংকে তৃতীয় অবস্থানে ছিল হাতপাখার প্রার্থীরা।নির্বাচন সুষ্টু হবে না তা বাংলাদেশের জনগনের হৃদয়ে বিশ্বাস জেগেছে।তাছাড়া আগামী সিটি নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার করলে সুষ্টু নির্বাচন হবে তা ভাবাটাও বোকামী হবে।তা স্বর্থেও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ভোটে অংশ নেওয়ার অন্যতম কারণ হলো জনগনের কাছে দলের দাওয়াতটা অন্তত পৌছে যাক।নির্বাচন উপলক্ষ্যে যেভাবে মানুষের কাছে যাওয়া যায় সেটা নির্বাচন ব্যতিত সম্ভব হয়ে উঠে না।নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ভিন্ন দল মতের লোকের কাছে হাতপাখার দাওয়াত দেওয়া যায়।ইসলামী দল সমূহের মধ্যে একমাত্র ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশই প্রার্থী দিয়েছে।বলা যায় ইসলাম পন্থীদের একক প্রার্থী হলো হাতপাখার প্রার্থীরা।

আওয়ামী লীগ বিএনপির জোটে যে সব ইসলামী দল আছে তাদের উচিত ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর হাতপাখাে প্রার্থীদের সমর্থন দেওয়া।বিশেষ করে কওমী ঘরানার দল গুলো হাতপাখার প্রার্থীকে ঈমানের তাগিদেই সমর্থন দিবে।ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ কোন জোটে নেই।ক্ষমতার মোহে নিজেদের আদর্শ বিসর্জন দেইনি।দলটি সব সময় ঐক্যের পক্ষে।বলা চলে দলটি ঐক্য প্রয়াসি।মেয়র প্রার্থীর পাশাপাশি ওয়ার্ড কাউন্সিল প্রার্থীও দিয়েছেন।ইসলাম, দেশ, মানবতা ও স্বাধীনতার পক্ষের নির্ভেজাল শক্তি ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ।রাজনৈতিক অঙ্গনে বর্তমানে তৃতীয় শক্তি হিসেবে বিবেচিত দলটি।কেন্দ্র থেকে তৃণমূল পর্যায়ে নিয়মতান্ত্রিকভাবে কাজ করে যাচ্ছে দলটি।যে সব ইসলামী দল ইসলামী হকুমতের লক্ষ্যে ঐক্য চায় তাদের উচিত আগামী সিটি নির্বাচনে হাতপাখার প্রার্থীকে সমর্থন দেওয়া।যদি ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর প্রার্থীকে সমর্থন না দিয়ে বিএনপি আওয়ামী লীগের প্রার্থীকে সমর্থন দেয় তাহলে জনগন বুঝবে তাদের ঐক্যের শ্লোগান আর বাস্তবতা এক নয় ।তাহলে জনগন ধরে নিবে মঞ্চে উঠে ঐক্য ঐক্য বলে যারা চিল্লাই তাদের মুখের কথা আর মনের কথা এক নয়।সহজ কথা আমরা ধরে নিতে পারব তারা ঐক্য চায়না।যদি  প্রকৃত ঐক্য প্রয়াসী হত তাহলে হাতপাখার প্রার্থীকে সমর্থন দিতে পারত।ওরা ঐক্য প্রয়াসী নয় বরংসে সব ইসলামী দল ধোকাবাজ,বাটপার ও মুনাফিক।আমি চাই আমার কথা মিথ্যা হোক।আসুন দল মত নির্বিশেষে দ্বীনের স্বার্থে হাতপাখার পক্ষে আওয়াজ তুলি।

লেখকঃ নুর আহমদ সিদ্দিকী

No comments:

Post a Comment

Pages