অন্ধভক্তদের নষ্ট উল্লাস বনাম সমাজের বাস্তবতা || amarkhobor24 - amarkhobor24.com

শিরোনাম

Home Top Ad


Thursday, January 23, 2020

অন্ধভক্তদের নষ্ট উল্লাস বনাম সমাজের বাস্তবতা || amarkhobor24

অাধুনিক যুগে ভাইরাল হতে দেরি হয়না।শুধু প্রয়োজন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম  ফেইসবুক ও ইউটিউবে  জনপ্রিয় হতে পারলেই কাজ শেষ।হোমড়া ছোমড়া কিছু বক্তা  কিছু ইংরেজি টিংরাজি মেরে যুব সমাজের মাথা নষ্ট করে দিচ্ছে।বয়ানের মাঠে ইসলামের সঠিক দর্শন প্রচার করলে সমাস্যা ছিলনা।কিন্তু কিছু বক্তা পর্দা,বিবাহসহ বিভিন্ন মীমাংসিত বিষয়ে শরিয়াত পরিপন্থী ফতোয়া দিয়ে সৃষ্টি করছে হাজারো বিতর্কের।বিষিয়ে তুলছে বয়ানের ময়দান।সেই সব বিতর্কিত বক্তাদের কিছু মুর্খ ও নষ্ট অন্ধভক্ত আছে যাদের কাছে ঐ বক্তাদের অসঙ্গতি ধরা পড়েনা।ধরা পড়বেই বা কিভাবে? তারা তো জাহেল।দ্বীনের নুন্যতম জ্ঞান তাদের নেই।তাদের সেই বিতর্কিত বক্তার বিতর্কিত ফতোয়া তারা ওহীর ন্যায় বিশ্বাস করে।বিতর্কিত ফতোয়া নিয়ে হক্কানি বিজ্ঞ আলেমরা মুখ খুললে গালি দিয়ে চৌদ্দগোষ্টি উদ্ধার করে অন্ধভক্তরা।
বাংলাদেশে আমি একজন স্পষ্টবাদী মানুষ পেয়েছি যার নাম মাওলানা সৈয়দ মুহাম্মদ ফজলুল করিম পীর সাহেব চরমোনাই রহ।তিনি সব সময় বলতেন আমাকে ততদিন মানবেন যত দিন আমি হকের পথে অটল আছি।আর যখন দেখবেন হকের পথ থেকে বিচ্যুত হয়েছি তখন আমাকে শোধরানোর চেষ্টা করবেন।আর যদি না শোধরাই তখন আমাকে ত্যাগ করে চলে যাওয়া আপনাদের ওয়াজিব হবে।এমন কথা তাঁর সন্তান মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল  করিম  ও মুফতি ফয়জুল করিম সাহেবও বলে থাকেন।বাংলাদেশ হাজারো পীর আছে কিন্তু পীর সাহেব চরমোনাইর মত করে এমন কথা বলেনা কেউ।মরহুম পীর সাহেব চরমোনাই বলতেন যারা আমার মুরিদ হওয়ার পরও বেপর্দা চলেন,বাড়িতে টিভি চলে এবং হালাল হারাম যাচাই না করে চলেন তারা আমার মুরিদ না।বর্তমানে পীর সাহেব গণ দল ভারি করার চিন্তা করে।মুরিদদের এছলাহ করার চিন্তা করেনা।

বর্তমান পীর সাহেব চরমোনাইও তাঁর পিতার মত আদর্শচ্যুত হয়নি।নীতি আদর্শ বিসর্জন দিয়ে ক্ষমতার লোভে কারো সাথে জোট করেনি।বাংলাদেশে যারা ইসলামী রাজনীতি করে তাদের অধিকাংশই ক্ষমতালোভী। জামায়েতি ইসলামী রাজনীতি করে কিন্তু অাদর্শচ্যুত।তাদের কোন নেতা পীর সাহেব চরমোনাইর মত কথা আদৌ বলতো পারেনি।বরং তাদের কর্মীদের শিক্ষা দেওয়া হয় এতদতাত বা অানুগত্যের।নেতা যদি কলাগাছও হয় তাকেও জামায়েতের নেতা কর্মীরা মানতে বাধ্য।কারণ তাদের কেন্দ্র থেকে তৃণমূলে আনুগত্যের শিক্ষা দেওয়া হয়।নেতা ভুল করলে তার সমালোচনা করা যাবেনা।তারা নেতাদের ভুল ধরতে না পারলেও নবী রাসূল ও সাহাবায়ে কেরাম এর ভুল ধরতে তৎপর।যদিও নবী রাসূলগণ নিস্পাপ।জামায়াতের কোন নেতা এখনো বলতো সাহস পায়নি - জামায়েতী ইসলামী যতদিন ইসলামের পক্ষে কাজ করবে ততদিন মানবে এবং আদর্শচ্যুত হলে মানবেনা।মূলত প্রতিষ্টালগ্ন থেকে তারা আসলেই আদর্শচ্যুত।একটি ইসলামী দলের আদর্শ ক্ষমতা কেন্দ্রীক হতে পারেনা।বাংলাদেশের জামায়াতের ইতিহাস পর্যালোচনা করে দেখেছি তাদের রাজনীতির চর্চা ক্ষমতাকেন্দ্রীক ইসলাম কেন্দ্রীক নয়। কারো না কারো লেজ ধরে ক্ষমতায় যাওয়া ইসলামী দলের আদর্শ হতে পারেনা।আসুন নেতা ও বক্তা কেউ ভুলের উর্ধ্বে নয় সেই সত্যটা মেনে নিতে চেষ্টা করি।কোন হক্কানি বিজ্ঞ আলেম নেতা ও বক্তাদের ভুল ধরলে বেয়াদব ও মূর্খের মত গালি না দিই।বরং সত্যটা উপলব্ধি করার চেষ্টা করি।

লেখকঃনুর আহমদ সিদ্দিকী

No comments:

Post a Comment

Pages