মাওলানা জিয়াউল হক নোমানী একজন প্রতিভাবান আলেম ||amarkhobor24 - amarkhobor24.com

শিরোনাম

Home Top Ad


Thursday, January 16, 2020

মাওলানা জিয়াউল হক নোমানী একজন প্রতিভাবান আলেম ||amarkhobor24

নাম মাওলানা জিয়াউল হক নোমানী। বিচক্ষণ, মেধাবী ও প্রতিভাবান আলেম।তিনি দাওরায়ে হাদিস সমাপ্ত করেছেন ঢাকা বারিধারা মাদরাসা থেকে।শায়খুল হাদিস আল্লামা অাজিজুল হক রহ এর সোহবতে ছিলেন ঢাকায় অধ্যায়নকালীন। প্রচার বিমুখ এক মেধাবী আলেম।তিনি একেধারে লেখক,গবেষক। তিনি চট্টগ্রাম একটি নামকরা মসজিদের খতিবও বটে।সাথে সাথে তার আরো একটি গুন আছে তা হলো তিনি একজন ওয়ায়েজও।তবে বাজারী বক্তা নয়।তাঁর আলোচনা গোছালো, গঠনমূলক, আমলী ও এলমী।সহজে যে কারো হৃদয়ে স্থান করে নিতে পারে। হিংসা, বিদ্বেষ ও প্রতিহিংসার যুগেও তিনি  সহজ সরল জীবন যাপন করেন।
আমি কোন বক্তাকে প্রমোট করিনা।তবে আজ তাঁর সম্পর্কে দু' একটি কথা বলতেই হয়।
গত ৪ জানুয়ারী শনিবার তিনি চরমোনাইর নমুনায় চট্টগ্রামের পলোগ্রাউন্ড মাঠে তিন ব্যাপি মাহফিলে বয়ান করেন।অল্প সময়ের বয়ান আমার খুব ভাল লেগেছিল।হাজারো শ্রুতা মন্ত্রমুগ্ধ হয়ে বয়ান শুনছিল।তিনি বয়ান করা কালীন স্টেইজে বসা ছিলেন বাংলাদেশের সাড়া জাগানো বক্তা মাওলানা হেদায়েতুল্লাহ আজাদী।তিনি তাঁর আলোচনার ভূয়সী প্রশংসা করেছেন।বর্তমান ওয়াজের ময়দানে বানোয়াট কিচ্ছা কাহিনী বলে হাজার হাজার টাকা নিয়ে যায় কিছু মাওলানা।কেউ কেউ ফতোয়া দিতে গিয়ে জন্ম দিচ্ছেন হাজারো বিতর্কের।সৃষ্টি হচ্ছে দলাদলি ও দ্বন্ধ। অনেকে বয়ান করে তা নিজে নিজে প্রচার করে।সে ক্ষেত্রে মাওলানা জিয়াউল হক নোমানী একেবারেই প্রচার বিমুখ।বর্তমান যুগ হল নিজের ঢোল নিজে বাজানোর যুগ।নিজের ঢোল নিজে বাজিয়ে সবাই জনপ্রিয় ও ভাইরাল হতে চাই।আর সে কারণে হাজারো ওয়াজ মাহফিল হলেও মানুষ দ্বীনের প্রতি আকৃষ্ট হচ্ছে না।ওয়াজের ময়দানে ভালো বক্তাদের সাথে সাথে কিছু ফেৎনাবাজও রয়েছে।ফেৎনাবাজদের কবল থেকে জাতিকে মুক্তি দিতে ওয়াজের ময়দানে মাওলানা জিয়াউল হক নোমানীর মত প্রচার বিমুখ প্রতিভাবান আলেমদের এগিয়ে আসতে হবে।

অনেকেই ভাবতে পারেন হঠাৎ কেন মাওলানা জিয়াউল হক নোমানী নিয়ে লেখালেখি করছি।বিশ্বাস করুন এতে আমার নুন্যতম স্বার্থ নেই।বেদাতি, ফেৎনাবাজদের ঠেকাতে উনার মত প্রতিভাবান আলেমদের ওয়াজের ময়দানে কাজে লাগাতে হবে।সাধারণ মানুষকে ফেৎনাবাজদের মিথ্যা, বানোয়াট কিচ্ছা কাহিনী থেকে ফেরাতে হক্কানি ও প্রতিভাবান আলেমদের ওয়াজের মাঠে আসতে হবে এবং আনতে হবে।এক সময় যারা বেদাতি তাফাজ্জুল হোসেন ভৈরবীর বয়ান শুনত তারা এখন কুয়াকাটা হুজুরের বয়ান শুনে।তাই প্রতিভাবান যুবক আলেমদের ওয়াজের ময়দানে নিয়ে আসতে হবে যাদের কণ্ঠ সুন্দর,তাকাওয়াবান
।হক্কানি যুবক আলেমরা ওয়াজের ময়দানে বিচরণ করলে বেদাতিদের বিভ্রান্তিকর ও মিথ্যা কিচ্ছা কাহিনী আর মার্কেটে চলবেনা।তাই আসুন জিয়াউল হক নোমানীর মত প্রতিভাবান আলেমদের ওয়াজের ময়াদানে এগিয়ে দিই।

লেখকঃনুর আহমদ সিদ্দিকী

No comments:

Post a Comment

Pages