আধুনিক যুগের চেয়ারম্যান বনাম সোনালী যুগের ইতিহাস - amarkhobor24.com

শিরোনাম

Home Top Ad


Tuesday, December 24, 2019

আধুনিক যুগের চেয়ারম্যান বনাম সোনালী যুগের ইতিহাস

আমরা পড়েছি ইতিহাসের সোনালী যুগ বলা হয় খোলাফায়েরাশেদীনদের যুগকে।পড়েছি, জেনেছি আর কল্পনা করেছি তাদের রাষ্ট্র শাসনকার্য।অাধুনিক যুগে এসেও যে সোনালী যুগের মত ইতিহাস রচিত হতে পারে তা ভাবিনি।ছবিতে যাকে দেখছেন তিনি একজন বিখ্যাত আলেম।হযরত হাফিজ্জি হুজুর রহ এর সুযোগ্য জামাতা আল্লামা খালেদ সাইফুল্লাহ দাঃ বাঃ।তিনি বর্তমান লক্ষ্মীপুর জেলার চরকাদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান। একজন স্থানীয় শাসক।তিনি ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর দলীয় প্রতীক    হাতপাখা  নিয়ে তিনি নির্বাচিত হয়েছে।পাঁচটি বছর তিনি চেয়াম্যানে হিসেবে যে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন তা সোনালী যুগের শাসকের কথা মনে পড়ে যায়।আমরা ইতিহাস অধ্যয়ন করে জেনেছি যে হযরত উমর (রা) রাষ্ট্র প্রধান থাকাকালীন আটার বস্তা কাধে নিয়ে  অসহায় দরিদ্রদের বাড়িতে পৌছে দিয়েছিলেন।আধুনিক যুগে এসে সেই ইতিহাস পড়া যায় কিন্তু সেই ইতিহাস পুনরায় ফিরে পাওয়া যায় কল্পনা করিনি।ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের এই চেয়ারম্যান অাধুনিক যুগে এসেও রচনা করছে সোনালী যুগের ইতিহাস।বাংলাদেশে বর্তমান একজন ইউপি সদস্যও এমপির ভাব দেখায়।সে সময়ে একজন ইউনিয়ন চেয়ারম্যান চলে সাদাসিদে। 

ইতোমধ্যে তিনি বিভিন্ন সংস্থা থেকে সফল চেয়াম্যান হিসেবে স্বর্ণপদক পেয়েছে।সরকারী জিনিস গরিব ও অসহায় মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে পৌছে দেন তিনি।ইউনিয়নের বিভিন্ন কাজে তিনি অংশগ্রণ করেন।ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের যে সব চেয়ারম্যান আছে সবাই স্বর্ণপদক প্রাপ্ত।বরিশাল চরমোনাই ইউনিয়নের চেয়াম্যান মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ আবুল খায়ের ইসহাক তিনিও সফল চেয়াম্যান।সফলতার কারণে   সরকার ও আন্তর্জাতিক সংস্থা থেকে বিভিন্নভাবে পুরস্কৃত হয়েছেন তিনি।ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ক্ষমতায় গেলে কিভাবে রাষ্ট্র পরিচালনা করবে তার সামান্য নমুনা পাওয়া যায় ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর দলীয় প্রতীক হাতপাখা নিয়ে নির্বাচিত চেয়ারম্যান এর কর্মকান্ডে। আগামী ইউপি নির্বাচনে সব  ইউনিয়নে চেয়ারম্যান ও ওয়ার্ডে মেম্বার প্রার্থী দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর আমির মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করিম পীর সাহেব চরমোনাই।  সুষ্টু নির্বাচন হলে শতাধিক চেয়াম্যান নির্বাচিত হতে পারে।দেশব্যাপি রচিত হবে সোনালী যুগের ইতিহাস।সব ইউপিতে প্রার্থী দিলে তৃণমূল থেকে সংগঠন মজবুত হবে যা আগামী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভাল ফল দিবে।

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ রাষ্ট্র ক্ষমতায় গেলে ফিরে আসবে সোনালী যুগের সেই ইতিহাস।ইনসাফ ভিত্তিক সমাজ ব্যবস্থার প্রবর্তন হবে। ইসলাম,দেশ, মানবতা ও স্বাধীনতার পক্ষে কাজ করছে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ। গত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলটি এক প্রকার চমক দেখিয়েছে।এর আগে সিটি নির্বাচনের ফলাফলে ব্যাপক জনপ্রিয়তা পেয়েছে দলটির প্রার্থীরা।আগামী ঢাকা উত্তর ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি নির্বাচনে প্রার্থী ঘোষণা করেছে দলটি।রাজনৈতিক অঙ্গনে নতুন করে আলোচিত দলটি ক্ষমতার লোভে আদর্শ বিসর্জন দেয়নি।নৈতিকতাকে জলাজঞ্জলি দিয়ে কোন  জোটে না যাওয়া দলটির জনপ্রিয়তা বাড়ছে জ্যামিতিক হারে।এই বৃদ্ধ ইউপি চেয়ারম্যান একেবারে অনাড়ম্বর জীবন যাপন করেন।বাই সাইকেল নিয়ে চলেন তিনি।তাঁর ইউনিয়ন  সকল প্রকার অন্যায় থেকে মুক্ত।মাদক,জুয়াসহ সকল অপরাধ থেকে দূরে তাঁর ইউনিয়নের মানুষ। চরমোনাই পন্থীরা ক্ষমতায় গেলে সোনালী যুগের ইতিহাস পুনরায় রচিত হবে তার নমুনা এই সব চেয়াম্যানের কর্মকান্ড ফুটে উঠেছে।

লেখকঃ নুর আহমদ সিদ্দিকী

No comments:

Post a Comment

Pages