নাগরপুরে সংবাদ সম্মেলন করলেন ধুবড়িয়া ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান শাকিল - amarkhobor24.com

শিরোনাম

Home Top Ad


Thursday, November 21, 2019

নাগরপুরে সংবাদ সম্মেলন করলেন ধুবড়িয়া ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান শাকিল

মোঃ আব্দুর রাজ্জাক রাজা নাগরপুর, টাংগাইল প্রতিনিধিঃ টাংগাইলের নাগরপুর উপজেলার ধুবড়িয়া ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান মোঃ মতিয়ার রহমান মতির মিথ্যা অপপ্রচারের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করলেন একই ইউনিয়নের ২ বারের সাবেক চেয়ারম্যান শফিকুর রহমান খান শাকিল। আজ (২১ নভেম্বর) ২০১৯ ইং, বৃহস্পতিবার দুপুরে ধুবড়িয়া পুরাতন বাজারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করে বলেন,
“আমি শফিকুর রহমান খান শাকিল, ২০০৪ সালের নির্বাচিত চেয়াম্যান, ২০১০ সালের নির্বাচিত চেয়ারম্যান হিসেবে স্থানীয় জনগণের সাথে আমার দায়িত্ব পালন কালীন সময়ে প্রশাসনিক ও স্থানীয় আচার ও বিচারকার্য যথাযত সুনাম নিয়েই পরিচালনা করিয়াছি। এতে স্থানীয় ভাবে আমার কর্মকান্ড নিয়ে পজেটিভ জনশ্রুতি রয়েছে। গত ৫/১১/২০১৯ ইং তারিখে ধুবড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদের প্যাড ব্যবহার করে বর্তমান চেয়ারম্যান ও তার বিভিন্ন অপকর্মের সহযোগী ৮নং ওয়ার্ড মেম্বার মোঃ তৌহিদুর রহমান আরজ সহ কতিপয় মেম্বারগণ কর্তৃক গৃহিত আলোচনা সাপেক্ষে আনিত দেহ ব্যবসা সংক্রান্ত নোটিশ প্রদানের প্রক্রিয়াটি বিব্রতকর। আমাকে এ বিষয় প্রসঙ্গে কোন প্রকার অবহিত ছাড়া উদ্দেশ্য প্রনোদিত ভাবে তারা কাজ করেন। গত ২০/১১/২০১৯ ইং তারিখে নাগরপুর প্রেস ক্লাবে তিনি ১টি সংবাদ সম্মেলন করেন যাহা ফেসবুকের মাধ্যমে আমি অবগত হই। সেখানে তিনি সম্পুর্ণ বিষয়টি সাবেক চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম খান রঙ্গু, আমি শফিকুর রহমান খান শাকিল, সাহাবুল আলম দুলাল সহ তিন জনের নাম দফায় দফায় উল্লেখ করে তাকে চাপ প্রয়োগের কথা বলেন। বিষয়টি বিজ্ঞ আদালতে বিচারাধীন । সেক্ষেত্রে বিগত সময়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি হিসেবে তাকে চাপ প্রয়োগের কিছুই নাই। তিনি তার প্রশাসনিক কাজে অজ্ঞ থাকায় আমাদের বিরুদ্ধে যে সংবাদ সম্মেলন করেছেন তা উদ্দেশ্য প্রনোদিত। মানুষ মুখি কার্যক্রম সামাজিক কিছু দায় দায়িত্ব ও বন্ধন থাকে। সেই দায় দায়িত্ব থেকে ভিকটিম আমার ওয়ার্ডে অবস্থান করাতে পাড়া ভিত্তিক মত বিনিময়ে আমার অবস্থা প্রকাশ করি। স্থানীয় সরকারের চেয়ারম্যান হিসেবে আনুষ্ঠানিক ভাবে জনাব মতিয়ার রহমান তার পরিষদে বসেন । যেখানে এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিহিসেবে আমাকে কোন প্রকার অবহিত করেন নাই। এছাড়া ঘটনাটি মামলা চলমান অবস্থায় আদালতিক তদন্তসহ যাবতীয় কার্যক্রমে মতিয়ার চেয়ারম্যান জড়িত ছিলেন। মতিয়ার চেয়ারম্যান একজন মাদকাশক্ত অসুস্থ ,কখন কোথায় কি বলেন, কি লেখেন, সকালে এক কথা বিকেলে আরেক কথা,এ রকম পরিস্থিতি চলমান। এ ছাড়া মতিয়ার চেয়ারম্যান নির্বাচনে অংশ গ্রহণের ২ মাস পূর্বে জাতীয়তাবাদি কৃষকদলের ধুবড়িয়া ইউনিয়নের সভাপতি ছিলেন”।
এসময় সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে জনাব শাকিল বলেন, দেহ ব্যবসা ও মাদক ব্যবসা সংক্রান্ত নোটিশে আমাকে সম্পৃক্ততা সম্পূর্ন উদ্দেশ্য প্রনোদিত, মিথ্যা, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন। তিনি আরো বলেন বর্তমান চেয়ারম্যান জনাব মতিয়ার নিজেকে নির্দোষ দাবি করে যে সংবাদ সম্মেলন করেন তা শুধুই লোক দেখানো। কারণ অপহরন ও ধর্ষণ মামলার বিচারিক তদন্তে  শুরু থেকে অদ্যবধি তিনি সম্পৃক্ত। তাই ধর্ষণের বিষয়টি তার অজানা থাকার কথা নয়। এতেই প্রমান হয় যে, এ সকল হীন মিথ্যা অপপ্রচার বর্তমান চেয়ারম্যান নিজেকে বাচাঁনোর জন্য করেছে।
এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন, ধুবড়িয়া ইউনিয়নের আ.লীগ নেতা আঃ মালেক খান, স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ন আহ্বায়ক মাজেদ প্রধান, যুবলীগের যুগ্ন আহ্বায়ক রিফাত বিন রুবেল, ৭নং ওয়ার্ড যুবলীগ সদস্য মোঃ আঃ হালিম, সাবেক সেনা সদস্য মোঃ মবিজ্জল হক, মোঃ আবুল বাসার সহ এলাকার গণ্যমান্য বক্তিবর্গ।

No comments:

Post a Comment

Pages